Breaking News
Home / বাংলা হেল্‌থ / ৯ শতাংশ সুদহারের প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট

৯ শতাংশ সুদহারের প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট

ক্রেডিট কার্ড ছাড়া অন্য সব খাতে ঋণের সুদহার ৯ শতাংশ নির্ধারণ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।মঙ্গলবার বিচারপতি আবু তাহের মোহাম্মদ সাইফুর রহমান ও বিচারপতি জাকির হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এর আগে সোমবার এ সংক্রান্ত রিট আবেদন শুনানির এখতিয়ার নেই উল্লেখ করে বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও মো. ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ কার্যতালিকা থেকে বাদ দেন।তবে আবেদনকারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন এ আবেদন শুনানির জন্য ২-১ দিনের মধ্যে এখতিয়ার সম্পন্ন (ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত) আদালতে যাবেন বলে জানিয়েছিলেন।গত রোববার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় মাহফুজুর রহমান নামে একজন আইনের ছাত্রের পক্ষে আইনজীবী সৈয়দ স্যায়েদুল হক সুমন এ রিটটি দায়ের করেন।

রিটে ক্রেডিট কার্ড ছাড়া সব ব্যাংক ঋণের সুদহার আগামী  ১ এপ্রিল থেকে ৯ শতাংশ   কার্যকরের বিষয়ে জারি করা বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার স্থগিত চাওয়া হয়। অর্থ সচিব, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরসহ তিনজনকে রিটে বিবাদী করা হয়েছে।এ বিষয়ে ব্যারিস্টার স্যায়েদুল হক সুমন সাংবাদিকদের জানান, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংক র্সাকুলার দিয়ে জানিয়েছে, ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলো ঋণের ক্ষেত্রে ৯ শতাংশের বেশি সুদ নিতে পারবে না। তবে এর আগে মৌখিকভাবে বলা হয়েছিল, ব্যাংকগুলো ৯ শতাংশের বেশি সুদ নিতে পারবে না এবং আমানতকারীদের ৬ শতাংশের বেশি সুদ দেওয়া হবে না। তিনি আরও জানান, ওই সার্কুলারে আমানতকারীদের বিষয়ে কিছুই বলা নাই। তার মতে, আমানতে সুদের হার ৬ শতাংশের কারণে ও কমানোর কারণে ২  কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।  ব্যারিস্টার সুমন জানান, ওই সার্কুলারে শুধু ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানের কথা আছে। অন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কথা বলা নাই। তাই আর্থিক প্রতিষ্ঠান চাইলে যা ইচ্ছা সুদ নিতে পারবে। এ কারণে  বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা ৯ শতাংশ সুদের সার্কুলারের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে।গত ২৪শে ফেব্রুয়ারি ক্রেডিট কার্ড ছাড়া ব্যাংকের সব ঋণের সুদ হার ৯ শতাংশ আগামী ১লা এপ্রিল থেকে কার্যকর হবে- এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। বর্তমানে ব্যাংক ভেদে উৎপাদন খাতে সুদ হার ১১ থেকে ১৪ শতাংশ। ভোক্তা ও এসএমই ঋণেরসুদহার আরও বেশি।

ক্রেডিট কার্ড ছাড়া অন্য সব খাতে ঋণের সুদহার ৯ শতাংশ নির্ধারণ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।মঙ্গলবার বিচারপতি আবু তাহের মোহাম্মদ সাইফুর রহমান ও বিচারপতি জাকির হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এর আগে সোমবার এ সংক্রান্ত রিট আবেদন শুনানির এখতিয়ার নেই উল্লেখ করে বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও মো. ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ কার্যতালিকা থেকে বাদ দেন।তবে আবেদনকারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন এ আবেদন শুনানির জন্য ২-১ দিনের মধ্যে এখতিয়ার সম্পন্ন (ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত) আদালতে যাবেন বলে জানিয়েছিলেন।গত রোববার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় মাহফুজুর রহমান নামে একজন আইনের ছাত্রের পক্ষে আইনজীবী সৈয়দ স্যায়েদুল হক সুমন এ রিটটি দায়ের করেন।

রিটে ক্রেডিট কার্ড ছাড়া সব ব্যাংক ঋণের সুদহার আগামী  ১ এপ্রিল থেকে ৯ শতাংশ   কার্যকরের বিষয়ে জারি করা বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার স্থগিত চাওয়া হয়। অর্থ সচিব, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরসহ তিনজনকে রিটে বিবাদী করা হয়েছে।এ বিষয়ে ব্যারিস্টার স্যায়েদুল হক সুমন সাংবাদিকদের জানান, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংক র্সাকুলার দিয়ে জানিয়েছে, ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলো ঋণের ক্ষেত্রে ৯ শতাংশের বেশি সুদ নিতে পারবে না। তবে এর আগে মৌখিকভাবে বলা হয়েছিল, ব্যাংকগুলো ৯ শতাংশের বেশি সুদ নিতে পারবে না এবং আমানতকারীদের ৬ শতাংশের বেশি সুদ দেওয়া হবে না। তিনি আরও জানান, ওই সার্কুলারে আমানতকারীদের বিষয়ে কিছুই বলা নাই। তার মতে, আমানতে সুদের হার ৬ শতাংশের কারণে ও কমানোর কারণে ২  কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।  ব্যারিস্টার সুমন জানান, ওই সার্কুলারে শুধু ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানের কথা আছে। অন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কথা বলা নাই। তাই আর্থিক প্রতিষ্ঠান চাইলে যা ইচ্ছা সুদ নিতে পারবে। এ কারণে  বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা ৯ শতাংশ সুদের সার্কুলারের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে।গত ২৪শে ফেব্রুয়ারি ক্রেডিট কার্ড ছাড়া ব্যাংকের সব ঋণের সুদ হার ৯ শতাংশ আগামী ১লা এপ্রিল থেকে কার্যকর হবে- এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। বর্তমানে ব্যাংক ভেদে উৎপাদন খাতে সুদ হার ১১ থেকে ১৪ শতাংশ। ভোক্তা ও এসএমই ঋণেরসুদহার আরও বেশি।

ক্রেডিট কার্ড ছাড়া অন্য সব খাতে ঋণের সুদহার ৯ শতাংশ নির্ধারণ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।মঙ্গলবার বিচারপতি আবু তাহের মোহাম্মদ সাইফুর রহমান ও বিচারপতি জাকির হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এর আগে সোমবার এ সংক্রান্ত রিট আবেদন শুনানির এখতিয়ার নেই উল্লেখ করে বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও মো. ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ কার্যতালিকা থেকে বাদ দেন।তবে আবেদনকারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন এ আবেদন শুনানির জন্য ২-১ দিনের মধ্যে এখতিয়ার সম্পন্ন (ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান সংক্রান্ত) আদালতে যাবেন বলে জানিয়েছিলেন।গত রোববার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় মাহফুজুর রহমান নামে একজন আইনের ছাত্রের পক্ষে আইনজীবী সৈয়দ স্যায়েদুল হক সুমন এ রিটটি দায়ের করেন।

রিটে ক্রেডিট কার্ড ছাড়া সব ব্যাংক ঋণের সুদহার আগামী  ১ এপ্রিল থেকে ৯ শতাংশ   কার্যকরের বিষয়ে জারি করা বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলার স্থগিত চাওয়া হয়। অর্থ সচিব, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরসহ তিনজনকে রিটে বিবাদী করা হয়েছে।এ বিষয়ে ব্যারিস্টার স্যায়েদুল হক সুমন সাংবাদিকদের জানান, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংক র্সাকুলার দিয়ে জানিয়েছে, ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলো ঋণের ক্ষেত্রে ৯ শতাংশের বেশি সুদ নিতে পারবে না। তবে এর আগে মৌখিকভাবে বলা হয়েছিল, ব্যাংকগুলো ৯ শতাংশের বেশি সুদ নিতে পারবে না এবং আমানতকারীদের ৬ শতাংশের বেশি সুদ দেওয়া হবে না। তিনি আরও জানান, ওই সার্কুলারে আমানতকারীদের বিষয়ে কিছুই বলা নাই। তার মতে, আমানতে সুদের হার ৬ শতাংশের কারণে ও কমানোর কারণে ২  কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।  ব্যারিস্টার সুমন জানান, ওই সার্কুলারে শুধু ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানের কথা আছে। অন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কথা বলা নাই। তাই আর্থিক প্রতিষ্ঠান চাইলে যা ইচ্ছা সুদ নিতে পারবে। এ কারণে  বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা ৯ শতাংশ সুদের সার্কুলারের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে।গত ২৪শে ফেব্রুয়ারি ক্রেডিট কার্ড ছাড়া ব্যাংকের সব ঋণের সুদ হার ৯ শতাংশ আগামী ১লা এপ্রিল থেকে কার্যকর হবে- এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। বর্তমানে ব্যাংক ভেদে উৎপাদন খাতে সুদ হার ১১ থেকে ১৪ শতাংশ। ভোক্তা ও এসএমই ঋণেরসুদহার আরও বেশি।

About admin

Check Also

আসুন জেনে নেই আদার অজানা উপকার

আদা এমন একটি উদ্ভিদ মূল যা মানুষের খাদ্য হিসাবে ব্যবহৃত হয়। আবার মশলা জাতীয় ফসলের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *